ড্রাগন ফলঃ জনপ্রিয় ফল, গুনাগুন, স্বাদ, রঙ, উপকারিতা, চাষাবাদ, বিক্রিতে লাভ ইত্যাদি

ড্রাগন ফল সারা বিশ্বেই জনপ্রিয়তায় শীর্ষে। আগে চীন ও থাইল্যান্ডে এ ফলের চাষ হলেও বর্তমানে বাংলাদেশে এর চাষাবাদ হচ্ছে। অন্য দেশের মতো আমাদের দেশে ড্রাগন ফল জনপ্রিয় হয়ে ওঠছে।

ড্রাগন ফল দেখতে ছোট এবং লাল টুকটুকে। খেতে দারুণ সুস্বাদু। এই ফল শুধু সুস্বাদু নয়, স্বাস্থ্যকরও বটে। ড্রাগন ফল নিয়মিত খেলে জটিল রোগসহ আরও অনেক রোগের ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব। এছাড়া এই ফল- ডায়বেটিস ও কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে, কোলেস্টরেল ও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে এবং অ্যাজমা ও ঠাণ্ডা-কাশির রোগীদের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

রাজধানীর অলিগলি থেকে শুরু করে ছোট-বড় সব ফলের দোকানে পাওয়া যায় ড্রাগন ফল। ‘ড্রাগন ফলের জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়ে চলছে। প্রতিকেজি ড্রাগন ফল ২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি করি। এছাড়া প্রতি পিস ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হয়। ড্রাগন ফল কিনে ঘরে রাখলে ১ সপ্তাহ ভালো থাকে। ফ্রিজে রাখলে ১ মাস পর্যন্ত সতেজ ও সজীব থাকে। এছাড়া বাচ্চারা খেতে খুব পছন্দ করে।

আবার পড়ুন

ড্রাগন ফল সারা বিশ্বেই জনপ্রিয়তায় শীর্ষে। আগে চীন ও থাইল্যান্ডে এ ফলের চাষ হলেও বর্তমানে বাংলাদেশে এর চাষাবাদ হচ্ছে। অন্য দেশের মতো আমাদের দেশে ড্রাগন ফল জনপ্রিয় হয়ে ওঠছে।

ড্রাগন ফল দেখতে ছোট এবং লাল টুকটুকে। খেতে দারুণ সুস্বাদু। এই ফল শুধু সুস্বাদু নয়, স্বাস্থ্যকরও বটে। ড্রাগন ফল নিয়মিত খেলে জটিল রোগসহ আরও অনেক রোগের ঝুঁকি এড়ানো সম্ভব। এছাড়া এই ফল- ডায়বেটিস ও কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে, কোলেস্টরেল ও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে এবং অ্যাজমা ও ঠাণ্ডা-কাশির রোগীদের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

রাজধানীর অলিগলি থেকে শুরু করে ছোট-বড় সব ফলের দোকানে পাওয়া যায় ড্রাগন ফল। ‘ড্রাগন ফলের জনপ্রিয়তা দিন দিন বেড়ে চলছে। প্রতিকেজি ড্রাগন ফল ২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি করি। এছাড়া প্রতি পিস ৩০ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হয়। ড্রাগন ফল কিনে ঘরে রাখলে ১ সপ্তাহ ভালো থাকে। ফ্রিজে রাখলে ১ মাস পর্যন্ত সতেজ ও সজীব থাকে। এছাড়া বাচ্চারা খেতে খুব পছন্দ করে।

Pigeonhole